ইষ্রা
গ্রন্থস্বত্ব
হিব্রু পরম্পরা পুস্তকটির গ্রন্থকার রূপে ইষ্রাকে কৃতিত্ব দেয়। অপেক্ষাকৃত অপরিচিত, ইষ্রা প্রধান যাজক হারোণের প্রতক্ষ্য বংশধর ছিলেন (7:1-5), এইরূপে তিনি তার অধিকারবলে একজন যাজক এবং অধ্যাপক ছিলেন। ঈশ্বরের প্রতি তার আগ্রহ এবং ঈশ্বরের ব্যবস্থা ইষ্রাকে আলোড়িত করেছিল ইহুদীদের এক গোষ্ঠীকে নেতৃত্ব দিতে পারস্য সাম্রাজ্যের ওপর রাজা অর্তক্ষস্তর রাজত্বের দিন কালে ইস্রায়েলে ফিরে আসতে।
রচনার সময় এবং স্থান
আনুমাণিক 457 থেকে 440 খ্রিষ্টপূর্বাব্দের মধ্যবর্তী সময়
পুস্তকটি যিহুদাতে লেখা হয়েছিল, সম্ভবতঃ যিরুশালেমে বাবিল থেকে প্রত্যাবর্তনের পরে।
গ্রাহক
নির্বাসন থেকে যিরুশালেমে প্রত্যাবর্তনের পর ইস্রায়েলীগণ এবং শাস্ত্র বাক্যের ভবিষ্যতের সমস্ত পাঠকবর্গ। উদ্দেশ্য ঈশ্বর ইষ্রাকে ব্যবহার করলেন শারীরিকভাবে লোকেদের জন্মস্থানে ফিরিয়ে দিতে এবং আত্মিকভাবে পাপের থেকে অনুতাপের মাধ্যমে ঈশ্বরের নিকট পুনরায় স্থাপন করতে। যখন আমরা প্রভুর কাজ করি তখন আমরা অবিশ্বাসী এবং আত্মিক শক্তির থেকে বিরোধিতা আশা করতে পারি, কিন্তু যদি আমরা দিনের র পূর্বেই প্রস্তুত থাকি, তবে আমরা ভালোভাবে সুসজ্জিত হতে পারি বিরোধের সম্মুখীন হতে। বিশ্বাসের দ্বারা আমরা রাস্তা বন্ধ হতে দেব না আমাদের উন্নতিকে স্তব্ধ হতে। ইষ্রা পুস্তকটি একটি মহান অভিজ্ঞান প্রদান করে যে নিরুত্সাহ এবং ভয় আমাদের জীবনে ঈশ্বরের পরিকল্পনাকে পূরণ করার ক্ষেত্রে সবথেকে দুইটি বড় বাধা হচ্ছে।
বিষয়
পুন:স্থাপন
রূপরেখা
1. যিরুব্বাবেলের অধীনে প্রথম প্রত্যার্বতন — 1:1-6:22
2. ইষ্রার অধীনে দ্বিতীয় প্রত্যার্বর্তন — 7:1-10:44
1
কোরস বন্দীদের ফিরে যেতে সাহায্য করেন৷
পারস্যের রাজা কোরসের প্রথম বছরে সদাপ্রভুর যে কথা যিরমিয় বলেছিলেন তা সম্পূর্ণ করার জন্য সদাপ্রভু পারস্যের রাজা কোরসের মনকে চঞ্চল করলেন, তাই তিনি নিজের রাজ্যের সব জায়াগায় ঘোষণার মাধ্যমে এবং লিখিত বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে এই আদেশ দিলেন, পারস্যের রাজা কোরস এই কথা বলেন, “স্বর্গের ঈশ্বর সদাপ্রভু পৃথিবীর সব রাজ্য আমাকে দান করেছেন, আর তিনি যিহূদা দেশের যিরূশালেমে তাঁর জন্য এই বাড়ি বানানোর ভার আমাকে দিয়েছেন৷ তোমাদের মধ্যে, তাঁর সমস্ত প্রজার মধ্যে, যে কেউ হোক, তার ঈশ্বর তার সঙ্গে সঙ্গে থাকুন; সে যিহূদা দেশের যিরূশালেমে যাক, ইস্রায়েলের ঈশ্বর সদাপ্রভুর যিরূশালেমের বাড়ি তৈরী করুক; তিনিই ঈশ্বর৷ আর যে কোনো জায়গায় যে কেউ অবশিষ্ট আছে, বাস করছে, সেখানের লোকেরা ঈশ্বরের যিরূশালেমের বাড়ির জন্য নিজের ইচ্ছায় দেওয়া উপহার ছাড়াও রূপা, সোনা, অন্যান্য জিনিস ও পশু দিয়ে তার সাহায্য করুক৷” তখন যিহূদার ও বিন্যামীন বংশের পূর্বপুরুষদের প্রধানেরা এবং যাজকেরা ও লেবীয়েরা, আর সদাপ্রভুর বাড়ি তৈরী করতে যিরূশালেমে যাওয়ার জন্য যে লোকদের মনে ঈশ্বর প্রবল ইচ্ছা দিলেন, তাঁরা সবাই উঠল৷ আর তাদের চারদিকের সব লোক নিজের ইচ্ছায় দেওয়া উপহার ছাড়াও রূপার পাত্র, সোনা, অন্যান্য জিনিস এবং পশু ও দামী জিনিস তাদেরকে দিয়ে তাদের হাত সবল করলো৷ আর নবূখদনিত্সর * তিনি বাবিলের রাজা ছিলেন, যিনি 605 থেকে 562 খ্রিষ্টপূর্বাব্দ পর্যন্ত রাজত্ব করেছিলেন, 597 খ্রিষ্টপূর্বাব্দে যিরুশালেমকে দখল করেছিলেন 586 খ্রিষ্টপূর্বাব্দে মন্দির ধ্বংস করেন, 597, 587 এবং 582 খ্রিষ্টপূর্বাব্দে যিহূদা থেকে বহু লোকেদের বন্দী করেন, এবং মন্দিরের বহুমূল্য দ্রব্য লুট করে বাবিলের দেবতাদের উপাসনা করতেন (উদাহরণ, দানিয়েল 5:1-4).সদাপ্রভুর বাড়ির যে সব পাত্র যিরূশালেম থেকে এনে নিজের দেবতার ঘরে রেখেছিলেন, কোরস রাজা সেই সব বের করে দিলেন৷ পারস্যের রাজা কোরস সেগুলি কোষাধ্যক্ষ মিত্রদাতের মাধ্যমে বের করে এনে, গণনা করে যিহূদার শাসনকর্ত্তা শেশবসরের কাছে তা গুনে সমর্পণ করলেন৷ সেই সব জিনিসের সংখ্যা; ত্রিশটি সোনার থালা, হাজারটি রূপার থালা, ঊনত্রিশটি ছুরি, 10 ত্রিশটি সোনার বাটি, চারশো দশটি দ্বিতীয় শ্রেণীর বাটি এবং এক হাজার অন্যান্য পাত্র; 11 মোট পাঁচ হাজার চারশো সোনার ও রূপার পাত্র৷ বন্দীদেরকে বাবিল থেকে যিরূশালেমে আনার দিনের শেশবসর এই সব জিনিস আনলেন৷

*1:7 তিনি বাবিলের রাজা ছিলেন, যিনি 605 থেকে 562 খ্রিষ্টপূর্বাব্দ পর্যন্ত রাজত্ব করেছিলেন, 597 খ্রিষ্টপূর্বাব্দে যিরুশালেমকে দখল করেছিলেন 586 খ্রিষ্টপূর্বাব্দে মন্দির ধ্বংস করেন, 597, 587 এবং 582 খ্রিষ্টপূর্বাব্দে যিহূদা থেকে বহু লোকেদের বন্দী করেন, এবং মন্দিরের বহুমূল্য দ্রব্য লুট করে বাবিলের দেবতাদের উপাসনা করতেন (উদাহরণ, দানিয়েল 5:1-4).