Revelation
যোহনের কাছে প্রকাশিত বাক্য
শুভেচ্ছা, স্বর্গে যীশুর দর্শন
১ যীশু খ্রীষ্টের প্রকাশিত বাক্য হল ঈশ্বর তাঁকে দেখিয়েছিলেন যা কিছুদিনের মধ্যে ঘটবেl তিনি নিজের দূত পাঠিয়ে তাঁর দাস যোহনকে এই সব বিষয় জানিয়েছিলেন l
২ ঈশ্বরের বাক্য ও যীশু খ্রীষ্টের সাক্ষ্য সম্বন্ধে যোহন যা দেখেছিলেন, সেই সব বিষয়েই তিনি এখানে সাক্ষ্য দিয়েছেন l
৩ যে এই ভাববাণীর বাক্য সব পড়ে সে ধন্য এবং যারা তা শোনে এবং পালন করে তারাও ধন্য; কারণ সময় কাছে এসে গেছে l
৪ এশিয়ার সাতটি মন্ডলীর কাছে যোহন লিখছেন: যিনি আছেন, ও যিনি ছিলেন, ও যিনি আসছেন, তাঁর কাছ থেকে এবং তাঁর সিংহাসনের সামনে যে সাতটি আত্মা আছে, সেই যীশুখ্রীষ্ট থেকে অনুগ্রহ ও শান্তি বর্তুক,
৫ এবং যীশুই, বিশ্বস্ত সাক্ষী, মৃত্যু থেকে তিনিই প্রথমে জীবিত হয়ে উঠেছিলেন, তিনিই পৃথিবীর রাজাদের শাষণকর্তা l তিনি আমাদের ভালোবাসেন এবং নিজের রক্ত দিয়ে পাপ থেকে আমাদের মুক্ত করেছেন l
৬ তিনি আমাদের নিয়ে একটা রাজ্য গড়ে তুলেছেন এবং তাঁর পিতা ও ঈশ্বরের সেবার জন্য যাজক করেছেন, চিরকাল ধরে তাঁর মহিমা ও আধিপত্য হোক l আমেন l
৭ দেখ, তিনি মেঘের সঙ্গে; প্রতিটি চোখ তাঁকে দেখবে, যারা তাঁকে বিদ্ধ করেছিল তারাও দেখবে l এবং পৃথিবীর সব বংশ তাঁর জন্য দুঃখ করবে l হ্যাঁ, আমেন l
৮ প্রভু ঈশ্বর বলেছেন, “আমি আদি এবং অন্ত,” “যিনি আছেন ও যিনি ছিলেন, ও যিনি আসছেন, আমিই সর্ব শক্তিমানl”
৯ আমি, তোমাদের ভাই যোহন এবং যীশুর সাথে যুক্ত হয়ে আমি তোমাদের সাথে একই কষ্ট, একই রাজ্য এবং একই ধৈর্য্যের ভাগী হয়ে-ঈশ্বরের বাক্য ও যীশুর সাক্ষ্য প্রচার করেছিলাম বলে আমাকে পাটম দ্বীপে নিয়ে রাখা হয়েছিল l
১০ আমি প্রভুর দিনে আত্মার বশে ছিলাম l আমার পিছনে তূরীর শব্দের মত এক উচ্চস্বর শুনলাম ।
১১ কেউ বললেন, তুমি যা দেখছো, তা একটা বইতে লেখ এবং ইফিসিও, স্মুর্ণা, পর্গাম, থুয়াতীরা, সার্দ্দি, ফিলাদেলফিয়া ও লায়দিকেয়া, এই সাতটি মন্ডলীর কাছে পাঠিয়ে দাও l
১২ যিনি কথা বলছিলেন তাঁকে দেখবার জন্য আমি ঘুরে দাঁড়ালাম, মুখ ফিরিয়ে দেখলাম,
১৩ সাতটি সোনার বাতিস্তম্ভ আছে ও সেই সব দীপাধারের মাঝখানে “মনুষ্যপুত্রের মতো একজন লোক দাঁড়িয়ে আছেন, তাঁর পরনে পা পর্য্যন্ত লম্বা পোষাক ছিল,
১৪ এবং তাঁর বুকে সোনার পট্টি বাঁধা ছিল l তাঁর মাথার চুল মেসের লোমের মত ও বরফের মতো সাদা ছিল,
১৫ এবং তাঁর চোখ আগুনের শিখার মতো ছিল l তাঁর পা ছিল আগুনে পুড়িয়ে পরিষ্কার করা, পালিশ করা পিতলের মতো এবং তাঁর গলার স্বর ছিল জোরে বয়ে যাওয়া স্রোতের আওয়াজের মতোl”
১৬ তিনি তাঁর ডান হাতে সাতটি তারা ধরে ছিলেন এবং তাঁর মুখ থেকে ধারালো দুইদিকে ধারওয়ালা তরোয়ালের মত বেরিয়ে আসছিল l পূর্ণ তেজে জ্বলন্ত সূর্যের মতই তাঁর মুখের চেহারা ছিল l
১৭ যখন আমি তাঁকে দেখলাম, তখন একজন মৃত মানুষের মতো তাঁর পায়ে পড়ে গেলাম, তখন তিনি তাঁর ডান হাত আমার উপরে রেখে বললেন, “ভয় পেওনা, আমিই প্রথম ও শেষ, আমিই চির জীবন্ত l
১৮ আমি মরেছিলাম, কিন্তু দেখ, আমি চিরকাল জীবিত আছি; আর মৃত্যু ও পাতালের চাবি আমার হাতে আছে l
১৯ অতএব তুমি যা দেখলে এবং যা এখন ঘটছে, ও এসবের পরে যা ঘটবে, সেই সব লিখে রাখ l
২০ আমার ডান হাতে যে সাতটি তারা এবং সাতটি সোনার দীপাধার দেখলে, তার গোপন মানে এই -সেই সাতটি তারা সেই সাতটি মন্ডলীর দূত এবং সেই সাতটি দীপাধার হলো সাতটি মন্ডলী l
এশিয়ার সাতটি মন্ডলীর প্রতি স্বর্গ-নিবাসী যীশুর আদেশ।